প্রশ্ন ও উত্তরের জনপ্রিয় ওয়েবসাইট ‘কোরা’র প্রায় ১০ কোটি ব্যবহারকারী হ্যাকিংয়ের শিকার হয়েছেন। ব্যবহারকারীর নাম, ই–মেইল ও এনক্রিপটেড পাসওয়ার্ড হাতিয়ে নিয়েছে হ্যাকাররা। এ ঘটনায় ক্ষমা চেয়েছেন কোরার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) অ্যাডাম ডি অ্যাঞ্জেলো।

ইন্দো এশিয়ান নিউজ সার্ভিসের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, গত ৩০ নভেম্বর হ্যাক হওয়ার বিষয়টি বুঝতে পারে কোরা কর্তৃপক্ষ। ক্ষতিকর থার্ড পার্টি প্রোগ্রাম কোরার সিস্টেমে ঢুকে পড়ায় এ ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছে কোরা কর্তৃপক্ষ।

গত সোমবার রাতে এক ব্লগ পোস্টে ডি অ্যাঞ্জেলো লিখেছেন, ‘আমাদের দায়িত্ব ছিল এ ধরনের ঘটনা যাতে না ঘটে, কিন্তু আমরা দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ হয়েছি।’

ফেসবুকের সাবেক প্রধান কারিগরি কর্মকর্তা ডি অ্যাঞ্জেলো ২০০৯ সালে কোরা প্রতিষ্ঠা করেন। প্রতিষ্ঠানটির প্রধান কার্যালয় যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ার মাউন্টেন ভিউতে। সাইটটিতে মাসিক ৩০ কোটি ইউনিট ভিজিটর রয়েছে।

কোরা কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, যাদের অ্যাকাউন্ট হ্যাক হয়েছে, তাদের ই–মেইলের মাধ্যমে জানানো হচ্ছে এবং তাদের লগ আউট করে দেওয়া হচ্ছে।

অ্যাডাম ডি অ্যাঞ্জেলো বলেন, তাঁদের ধারণা, তাঁরা সমস্যার কারণ চিহ্নিত করতে পেরেছেন। সমস্যা সমাধানে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপও নেওয়া হয়েছে। ব্যবহারকারীদের নিরাপত্তা আরও জোরদার করতে তদন্তকাজ চলছে। তিনি বলেন, ‘আমরা আমাদের অফিসের বিশেষজ্ঞ এবং বাইরে বিশেষজ্ঞদের সাহায্যে সমস্যা সমাধানে কাজ করছি। আর কী কী পদক্ষেপ নিলে ভবিষ্যতে আর এমন হবে না, সেটা নিয়েও কাজ চলছে।’

কোরার সিইও বলেন, ‘এ ঘটনায় উদ্বেগ ও যেকোনো সমস্যার জন্য আমরা ক্ষমাপ্রার্থী।’

সম্প্রতি ঘটে যাওয়া কয়েকটি বড় ধরনের হ্যাকিংয়ের ঘটনার মধ্যে কোরার হ্যাকিংয়ের ঘটনাটিও গুরুত্বপূর্ণ। গত সপ্তাহে হোটেল চেইন ম্যারিয়ট জানায়, তাদের গেস্ট রিজার্ভেশন সিস্টেম হ্যাক করে ৫০ কোটি ব্যবহারকারীর তথ্য হাতিয়ে নিয়েছে হ্যাকাররা। এতে ব্যবহারকারীর নাম, ঠিকানা, ফোন নম্বর, ই–মেইল, পাসপোর্ট নম্বর ও ভ্রমণসংক্রান্ত তথ্য রয়েছে। ২০১৩ সালে ইয়াহু হ্যাক হওয়ার পর এটা সবচেয়ে বড় হ্যাকিংয়ের ঘটনা।

সফটওয়্যার নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠান চেক পয়েন্ট সফটওয়্যার টেকনোলজিসের একজন মুখপাত্র বলেন, যে প্রতিষ্ঠানের কাছে বিশাল তথ্যভান্ডার রয়েছে, তাদের লক্ষ্য করে আক্রমণ করছে হ্যাকাররা। সম্প্রতি এয়ারলাইনস ও হোটেল চেইনে আক্রমণ দেখা যাচ্ছে।

কোরার হ্যাকিংয়ের ঘটনার কোনো আর্থিক তথ্য হাতছাড়া হয়নি। তবে যাঁরা কোরা ব্যবহার করেন, তাঁদের দ্রুত পাসওয়ার্ড বদল করে ফেলা উচিত। একই পাসওয়ার্ড অন্য অ্যাকাউন্টে ব্যবহার করা ঠিক নয়।

ক্রিপটাস সাইবার সিকিউরিটির পরিচালক প্রবেশ চৌধুরী বলেন, তথ্য নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে কোরা অ্যাকাউন্ট মুছে ফেলা যেতে পারে। যদি গুগল ও ফেসবুক ব্যবহার করে অ্যাকাউন্ট খুলে থাকেন, তবে অ্যাকাউন্ট পাসওয়ার্ড তৈরি করে নিতে পারেন।

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here