ইসলামী ঐক্যজোট যখন জোট ছিল, তখনও দল হয় নাই তখন এক সময় বিভক্তি দেখা দিল। দ্বন্ধ নিরসনে এগিয়ে এলেন উলামায়ে কেরাম। গঠিত হল সর্বোচ্চ উলামা পরিষদ। বিভক্তি পুরোপুরি না কাটলেও তাদের ভুমিকা ছিল আশাব্যঞ্জক।

আজকের অবস্থা এমন, কেউ বাকি নেই যিনি সবাইকে ডেকে বলবেন, এই তোমরা স্টপ, দাড়াও যে যেখানে আছ সেখানেই। কেউ নেই বাকি যিনি সবাইকে তাওবাহ করার জন্য, পরিশুদ্ধির জন্য আহ্বান করবেন। কিন্তু শিরোনাম একটাই, কোথাও কেউ নেই।

বিশ দলীয় জোটে জামায়াত সেই কবেই কিক আউট, খেলাফত মজলিস আর জমিয়তকে ছেড়ে বিএনপি ইয়া নফসি ইয়া নফসি জিকিরে ব্যাস্ত, এই দুই ইসলামী দল এখন তাহলে আমি কার খালু শীর্ষক চিন্তায় আছন্ন বাকি দলগুলোর কেউ আওয়ামীলীগে কেউ আওয়ামীলীগের বি টিম জাতীয় পার্টির জোটে আর কেউ ডাইরেক্ট নৌকায় উঠে কোরাস গাইছেন, ছেড়ে দে নৌকা মাঝি যাব মদীনা…

আহহা, আমাদের কেউ নেই যিনি ডেকে সবাইকে এক টেবিলে বসাতে পারবেন।

আজ কাল পরশু যদি সকল ইসলামী দল অন্তত এক জায়গায় বসতে পারত তাহলে ইতিহাসটা অন্যরকম হতে পারত।

আওয়ামীলীগ থাকুক বা না থাকুক বাংলাদেশ এখন ইহুদী শক্তির খপ্পরে। আমরা রাজনীতি যথেষ্ট করেছি৷ এখন মরহুম মুহাম্মউল্লাহ হাফেজ্জী হুজুরের মত কারো দরকার, যিনি আমাদেরকে, আমরা যারা ইসলামের নামে রাজনীতি করি তাদেরকে ডাক দিয়ে জমা করে বলবেন, এই এই, তোর রাজনীতির দরকার নাই, ইলেকশনের দরকার নাই, এখনি এই মূহুর্তে তওবা কর৷

দুর্ভাগ্য, এমন কাউকে খুজে পাচ্ছিনা।


-লেখক ও কলামিস্ট

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here