টঙ্গীর তুরাগ তীরে ১০ জানুয়ারি অনুষ্ঠেয় ৫৫তম বিশ্ব ইজতেমার এখনো বাকী আছে আরো দুই দিন। অথচ ইজতেমার মাঠে দেশ ও বিদেশের লক্ষ লক্ষ সাথী জমা হয়ে গেছে। 

বুধবার সকাল থেকেই অনুকুল আবহাওয়া, শান্তিপূর্ণ পরিবেশ ও ধর্মীয় উদ্দীপনায় মাঠে এসে জমা হন দাওয়াত ও তাবলীগের সাথীগণ। দল বেধে টঙ্গীর তুরাগ তীরে আসেন তারা।

সকাল থেকেই সর্বস্তরের মুসলমানরা বিশ্ব ইজতেমায় শামিল হওয়ার জন্য টুপি, পাঞ্জাবী পরে জায়নামাজ হাতে ইজতেমা মাঠের দিকে ছুটতে দেখা গেছে। দেশ বিদেশের মুসল্লির সাথে একই জামাতে শরীক হয়ে সওয়াব হাসিলের উদ্দেশ্যে সকলের মধ্যে দেখা গেছে ব্যাকুলতা।

যতই সময় গড়াতে থাকে ততই মুসল্লিদের ঢল আঁচড়ে পড়ে তুরাগের তীরে। শিশু-কিশোর থেকে শুরু করে সব বয়সী মানুষের সমাবেশ ঘটছে তুরাগ তীরে।

টঙ্গীর যেদিকে চোখ যায় শুধু টুপি-পাঞ্জাবী পড়া মুসল্লিদের দেখা মেলে। পুরো টঙ্গী নগরী যেন টুপি-পাঞ্জাবী পড়া মানুষের নগরে পরিণত হয়েছে। বিশ্ব ইজতেমায় যোগ দিতে দেশ-বিদেশ থেকে মুসল্লি-দের টঙ্গী মুখি স্রোত অব্যাহত রয়েছে।

উল্লেখ্য, আলমী শূরার সাথীদের ২০২০ সালের ইজতেমার আনুষ্ঠানিক পর্ব। ইতোমধ্যে মাঠে এসে উপস্থিত হয়েছেন দেশি বিদেশি অনেক মুরুব্বী। তাবলীগের জামাতের ভারতীয় অন্যতম মুরুব্বী মাওলানা আহমদ লাট সাহেব এবং ইবরাহিম দেওলা সাহেব জামাতসহ কিছুক্ষণ আগে এয়ারপোর্টে অবতরণ করেন। এদিকে বাংলাদেশ সরকারের মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজ্জাম্মেল হক এবং যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল বিমানবন্দরে তাদের অর্ভর্থনা জানিয়েছেন। তাবলীগের এই শীর্ষ দুই মুরুব্বীর নিরাপদে বাংলাদেশে পৌঁছানোর জন্য শুবরিয়া আদায় করা হচ্ছে এবং ইজতেমার পূর্ণ কামিয়াবির জন্য তাবলীগের সকল পর্যায়ের মুরুব্বীদের পক্ষ থেকে দেশবাসীর কাছে দোয়ার আবেদন করা হয়েছে।

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here