ভারতের সঙ্গে চুক্তির বিরোধিতার জেরে ছাত্রলীগের হাতে নৃশংসভাবে খুন বুয়েটের মেধাবী ছাত্র আবরার ফাহাদকে নিয়ে ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন তার ছোট ভাই আবরার ফাইয়াজ।

ওই স্ট্যাটাসে আবরার হত্যার ‌মূলহোতা রুমমেট মিজানুর রহমান ছাড়াও অভিযুক্ত হোসেন মোহাম্মদ তোহা, শামীম বিল্লাহ ও মোয়াজ আবু হোরায়রাকে নিয়ে কথা বলেছেন ফাইয়াজ।

তাদের সবার সঙ্গে আবরারের ভালো সম্পর্ক ছিল বলে স্ট্যাটাসে উল্লেখ করেন তিনি।

ফাইয়াজ বলেন, ঘাতক শামীম বিল্লাহকে টিউশন ঠিক করে দিয়েছিল ভাইয়া।

আবরার ফাহাদকে নৃশংসভাবে পিটিয়ে হত্যায় যে ১১ জন সরাসরি অংশ নিয়েছিল তাদের মধ্যে শামীম অন্যতম।

আবরার হত্যার ‌মূলহোতা রুমমেট মিজানুর রহমান সম্পর্কে তিনি বলেন, তাকে হলের অনেকেই অনেক খারাপ জানলেও ভাইয়ের কাছ থেকে জানতে পারে মিজান নাকি অনেক ভালো। বাকি রুমমেটদের মতবাদ অনুযায়ী রুমে মিজানের সবচেয়ে বেশি সখ্য ছিল ভাইয়ার সঙ্গে। কোথাও বাইরে খেতে গেলে নাকি ভাইয়াকে ছাড়া যেতই না।

ঘাতক মোয়াজ সম্পর্কে ফাইয়াজ বলেন, ‌ভাইয়ার রোল ৯৮ তার ১০৬। ভাইয়ার সঙ্গে তার ভালো বন্ধুত্ব থাকলেও সে সেখানে উপস্থিত ছিল।

হত্যাকারী তোহাকে নিয়ে লেখেন, ‌ভাইয়ার ১০৭ এর রুমমেট। যার সঙ্গে দীর্ঘ সময় থাকায় ভালো সম্পর্ক ছিল।

প্রসঙ্গত গত ৫ অক্টোবর দিল্লিতে হায়দ্রারাবাদ হাউসে বাংলাদেশ ও ভারতের প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতিতে দুই দেশের মধ্যে সাতটি চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়।

এসব চুক্তির সমালোচনা করে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেন বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের তড়িৎ কৌশল বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র আবরার ফাহাদ।

পরদিন রাতে বুয়েট শেরে বাংলা হলের ২০১১ নম্বর কক্ষে ডেকে নিয়ে আবরারকে পিটিয়ে হত্যা করে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের ছাত্র সংগঠন ছাত্রলীগের একদল নেতাকর্মী।

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here