১৯৭০ এর নির্বাচনে গণমানুষই ভোট দিয়ে আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় এনেছিল। কিন্তু আজকের আওয়ামী লীগ সেই ভোটের অধিকার রক্ষা করতে পারেনি। এ কারণে তাদেরকে আগামীতে গনমানুষ মিলে-মিশে উৎখাত করবে। আজ (৫ অক্টোবর) বাদ জুমা ইসলামী আন্দোলন আয়োজিত মহাসমাবেশের বক্তৃতায় এ কথা বলেন, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের নায়েবে আমীর মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ ফয়জুল করীম।

তিনি আরো বলেন, বর্তমান সিইসি একজন রোবট। তাকে যা শিখিয়ে দেয়া হয় তাই করে। এই রোবটকে মানুষ আর দেখতে চায় না। জনগণ নিরপেক্ষ নির্দলীয় ইসি চায়।

ইভিএমকে আওয়ামী লীগের বিজয়ী করার মেশিন আখ্যা দিয়ে তিনি বলেন, এই ইভিএম কেনার জন্য ৪ হাজার কোটি টাকা খরচ করা হয়েছে। এগুলো জনগণের টাকা। জনগণ তাদের টাকার হিসাব একদিন পাই পাই নেবে।

ইসলামী আন্দোলনের প্রেসিডিয়াম সদস্য সৈয়দ মুসাদ্দেক বিল্লাহ আল মাদানী বলেন, শাপলা চত্বরে ২০১৩ সালে আমাদের ভাইকে রাতের আধারে গুলি করে মেরেছে। আমরা তাদের বিচার চাই।

তিনি বলেন, এ রক্তের দাগ কখনো মুছবে না। এর বিচার না হলে এ সরকার জগরোষে পতিত হবে। আল্লাহ তাদের বিচার করবেন, ইনশাআল্লাহ!

তিনি আরো বলেন, ভারত আমাদের কাছে যা চাচ্ছে সবই দিয়ে দেয়া হচ্ছে। দেশকে ভারতের কাছে তারা বিক্রি করতে চায়। কিন্তু আমরা বাংলাদেশকে, বাংলাদেশের ইসলামী তাহজিব তামাদ্দুনকে বিক্রি হতে দেবো না। ভারতের একজন মন্ত্রী বাংলাদেশ দখল করার হুমকি দিয়েছে। আমরা স্পষ্ট করে বলে দিচ্ছি, তোমরা যদি বাংলাদেশ দখল করতে চাও তবে আমরা লংমার্চ করে দিল্লি দখল করবো।

আল মাদানী আরও বলেন, আগামীতে ফের যদি ৫ জানুয়ারির মতো নির্বাচন হয় তাহলে আমরা জীবন দিয়ে তা প্রতিহত করবো ইনশাআল্লাহ।

 

 

সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমীর মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীম পীর সাহেব চরমোনাই।

তিনি সভাপতির বক্তৃতায় ইসলামী আন্দোলনের নেতাকর্মীদের সারাদেশের জনগণের মন জয় করার নির্দেশ দিয়ে বলেন, হাতপাখা প্রতীক নিয়ে এখনই মানুষের দ্বারে দ্বারে নেমে পড়ুন। মানুষের মন জয় করুন। জনগণের সেবা করুন। দেশের যে কোনো কল্যাণে ঝাপিয়ে পড়ুন।

পীর সাহেব আরো বলেন, হাতপাখা হলো শান্তির প্রতীক। শান্তির প্রতীক নিয়ে জনগণের কাছে আগামীর শান্তির বার্তা পৌঁছে দিন। আমরা একটি মডেল রাষ্ট্র কায়েম করতে চাই। যেখানে দুর্নীতি থাকবে না, চাঁদাবাজি, খুন, গুম থাকবে না। মানুষ শান্তিতে বসবাস করবে।

 

 

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here