নির্বাচনী প্রচারে

নির্বাচনী প্রচারে নির্বাচন কমিশন প্রার্থীদের প্রতি যে নির্দেশনা প্রদান করেছিল, ব্যাপকভাবেই তা লঙ্ঘিত হচ্ছে। কিন্তু এর জন্য তাদেরকে কোনো জবাবদিহিতার মুখোমুখি করা হচ্ছে না। সাধারণ মানুষের কষ্ট হলেও তারা ভয়ে মুখ খুলছেন না।

বিশেষ করে পোস্টার ও মাইক ব্যবহারে ইসির নির্দেশনার প্রতি ভ্রুক্ষেপই করছেন না প্রার্থী ও তার সমর্থকেরা। বেলা দুইটা থেকে রাত আটটা পর্যন্ত মাইক ব্যবহারের কথা থাকলেও সকাল থেকেই শুরু হচ্ছে মাইক ব্যবহার। তাও আবার বড় বড় সাউন্ড বক্স লাগিয়ে। যার আওয়াজে কানের পর্দা ফেটে যাওয়ার উপক্রম হয়। চলছে মধ্যরাত পর্যন্ত। এতে করে নির্বাচনী প্রচারের নামে এক ধরনের নির্যাতন সহ্য করতে হচ্ছে দেশবাসীকে।

বাড়ির দেয়ালে কিংবা কোন ধর্মীয় স্থানে পোস্টার ব্যানার লাগানোর নিষেধাজ্ঞা কাজে আসছে না মোটেও। যত্রতত্র লাগানো হচ্ছে পোস্টার-ব্যানার।  ধর্মীয় স্থানে গিয়ে ভোট চাওয়া নিষেধ থাকলেও অহরহই মসজিদে গিয়ে প্রার্থীদেরকে ভোট চাইতে দেখা যাচ্ছে।

জনমনে প্রশ্ন উঠেছে, তাহলে এধরনের নির্দেশনার মানে কি? যদি নির্বাচন কমিশন আন্তরিকভাবেই নির্দেশনা দিয়ে থাকেন তাহলে তার তদারকি করছেন না কেন? আজ নির্বাচন নির্বাচনী প্রচারের শেষ দিন। কতটা নির্যাতন দেশবাসীকে সইতে হবে এই ভেবে তারা আতঙ্কিত।

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here