মূর্তি-ভাস্কর্য স্থাপন নিয়ে জনমনে বিভ্রান্তি নিরসনে কোরআন সুন্নাহ্’র আলোকে দেশের শীর্ষ আলেম ও মুফতিগণের ফতোয়া প্রকাশ করেছে দেশের শীর্ষ উলামা মাশায়েখগণ।

আজ বৃহস্পতিবার (৩ ডিসেম্বর) দুপুর ৩টায় ঢাকার রিপোর্টার্স ইউনিটি মিলনায়তনে দেশের শীর্ষ উলামা মাশায়েখগণ এক সংবাদ সম্মেলনে এ ফতোয়া প্রকাশ করেন।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন ইসলামিক রিসার্চ সেন্টার বসুন্ধরার মুফতি ইনামুল হক।

লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, মুফতিগণ সর্বসম্মতিক্রমে এই প্রশ্নের যা রায় দেন তা হলো, কোরআন ও হাদীসের আলোকে মানুষ বা অন্য যে কোন প্রাণীর ভাস্কর্য-মূর্তি নির্মাণ, স্থাপন, সংরক্ষণ – পূজার উদ্দেশ্যে না হলেও সন্দেহাতীতভাবে নাজায়েয, স্পষ্ট হারাম এবং কঠোরতর শাস্তিযোগ্য গুনাহ্। আর যদি পূজার উদ্দেশ্যে হয় তাহলেতো স্পষ্টই শিরক। প্রাণীর ভাস্কর্য ও পূজার মূর্তির মাঝে শরিয়তের দৃষ্টিকোণে হারাম ও নিষিদ্ধ হওয়ার দিক দিয়ে কোন পার্থক্য নেই।

লিখিত বক্তব্যে আরও বলা হয়, কেউ কেউ প্রাণীর ভাস্কর্য ও মূর্তির মাঝে পার্থক্য করে প্রাণীর ভাস্কর্যকে বৈধ করার অপচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে এই বলে যে, ভাস্কর্য মূর্তি এক নয়। তাদের দাবি শরিয়া বিধানের দিক থেকে তো এক নয়-ই এমনকি অভিধানিকভাবেও ভুল। কারণ অভিধানিকভাবে প্রাণীর ভাস্কর্য আর মূর্তির মাঝে কোন বৈপরীত্য নেই। ভাস্কর্যের প্রকৃত অর্থ দেখে নিতে পারেন, বাংলা একাডেমী, ইংলিশ বাংলা ডিকশনারি, সংসদ বাংলা অভিধানের মাঝে।

সংবাদ সম্মেলনে মুফতি মওলানা এনামুল হক বলেন, কোরআন-সুন্নাহর সুস্পষ্ট বিধানের সামনে বিভিন্ন দেশের ভাস্কর্য বা মূর্তির উপমা টেনে আনা ইসলামের একটি অকাট্য বিধানকে অবজ্ঞা করার সামিল। কোনো মুসলিম দেশের শাসকদের শরিয়তবিরোধী কাজ মুসলমানদের জন্য অনুসরণযোগ্য নয়। তাদের জন্য একমাত্র অনুসরণীয় হলো কোরআন-সুন্নাহ ও ইসলামি শরিয়ত।

শীর্ষ আলেমদের পক্ষে এ ফতোয়া প্রকাশ করেছেন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ ও জমিয়তের মহাসচিব মাওলানা নূর হোসাইন কাসেমী, ইসলামিক রিসার্চ সেন্টার বসুন্ধরার প্রিন্সিপাল মুফতি আরশাদ ও মাওলানা মাহফুজুল হক।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন আল্লামা আতাউল্লাহ হাফেজ্জী, আল্লামা আব্দুল হামিদ পীর সাহেব মধুপুর, মুফতী আরশাদ রহমানী বসুন্ধরা, আল্লামা আবুল কালাম মুহাম্মদপুর, মুফতী মাহফুজুল হক, মাও. জুনাইদ আল-হাবীব, মুফতী বাহাউদ্দীন যাকারিয়া, মুফতী মঞ্জুরুল ইসলাম আফেন্দী, মাও. খোরশেদ আলম কাসেমী, মাও.খালেদ সাইফুল্লাহ আইয়ুবীসহ দেশের শীর্ষস্থানীয় উলামা মাশায়েখ ও মুফতিগণ।

 

 

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here