হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের মহাসচিব, দারুল উলুম মুঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদরাসার সহকারী পরিচালক শাইখুল হাদিস আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী বলেছেন, ইজতেমার মাঠে পরিকল্পিত ভাবে আলেম-উলামা ও মাদরাসার ছাত্রদের উপর জঘন্যতম হামলা করা হয়েছে। যে ইজতেমার ময়দানে দাওয়াতের কাজ চলতো সেখানে নিরীহ মাসুম ছাত্রদের রক্ত ঝরেছে।

আজ সোমবার (০৩ ডিসেম্বর) হাটহাজারীর ডাক বাংলো চত্বরে আয়োজিত ইজতেমার মাঠে নিরীহ মাদরাসার ছাত্র-শিক্ষকদের উপর বিতর্কিত সা’দ, ওয়াসিফ গং সন্ত্রাসীদের নগ্ন হামলা ও হত্যার প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশের বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

এসময় তিনি প্রশাসনের কাছে ওই হামলার বাস্তবায়নকারী ওয়াসিফ, নাসিমগংদের শাস্তির দাবি জানান। এবং সামাজিকভাবে সা’দের অনুসারীদের চিহ্নিত করে বয়কট করার আহবান জানান।

আল্লামা বাবুনগরী দরবারী আলেমদের দিকে ইঙ্গিত করে বলেন, আমি হাইয়াতুল উলইয়ার মুরুব্বিদের বলছি হাইয়াতুল উলইয়াতে যেনো কোনো দালালদের ঠাই না হয়। দালালদের মাধ্যমে ইসলামের ক্ষতি আগেও হয়েছে এখনও হচ্ছে।
এসময় আল্লামা বাবুনগরী দরবারী আলেমদের হাটহাজারীতে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেন। কোনো মাদরাসায় জেনো দরবারী আলেমরা আসতে না পারেন সেজন্য সকল আলেমদের প্রতি তিনি আহবান জানান।

সমাবেশ থেকে আহত ও শহীদ ভাইদের মাগফিরাত কামনায় বিভিন্ন মাদরাসায় দোয়া মাহফিল কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়।

বিক্ষোভ সমাবেশ শেষে হাটহাজারী ডাক বাংলো চত্বর থেকে একটি মিছিল বের হয়ে হাটহাজারী বাস স্ট্যান্ড ও জাগৃতি প্রদক্ষিণ করে আবার ডাক বাংলোতে এসে শেষ হয়।

সমাবেশে মুফতি মোহাম্মদ আলীর সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন, আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী, মুফতি জসীম উদ্দিন, মাওলানা জাফর আহমদ, মাওলানা মীর ইদ্রীস, মাওলানা কাজী সফিউল্লাহ্, মাওলানা জুহাইর, মাওলানা মাহমুদুল হুসাইন, মাওলানা ইসমাঈল খান, মুফতি শিহাবুদ্দিন, মাওলানা তাজুল ইসলাম, মাওলানা ইমরান সিকদার, মাওলানা জাহাঙ্গীর মেহেদী ও মাওলানা ইয়াসিন প্রমুখ।

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here