চীনে ধীরে ধীরে মহামারী রূপ নিচ্ছে মরণঘাতী করোনাভাইরাস। এই ভাইরাসে সোমবার পর্যন্ত ৪২৫ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে চীনা কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন। আক্রান্ত হয়েছে কমপক্ষে ২০ হাজার।

এদিকে, চীন শাসিত অঞ্চল তাইওয়ানে নতুন করোনাভাইরাসের চেয়ে বেশি আতঙ্ক সৃষ্টি করেছে সোয়াইন ফ্লু। গত তিন মাসে দেশটিতে এইচ১এন১ ভাইরাসের সংক্রমণে সোয়াইন ফ্লুতে আক্রান্ত হয়ে অন্তত ৫৬ জনের মৃত্যু হয়েছে।

তাইওয়ান রোগ নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্রের (সিডিসি) বরাত দিয়ে এ তথ্য জানায় সাউথ চায়না মর্নিং পোস্ট।

খবরে বলা হয়, তাইওয়ানে এ পর্যন্ত ১০ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হলেও কারো মৃত্যু হয়নি। অন্যদিকে অঞ্চলটিতে গত তিন মাসে সোয়াইন ফ্লুতে আক্রান্ত হয়ে অন্তত ৫৬ জনের মৃত্যু হয়েছে।

স্থানীয় এক সংবাদমাধ্যমের দাবি, গত সপ্তাহেই সোয়াইন ফ্লু’র কারণে মারা গেছেন ১৩ জন। অন্যদিকে সেন্ট্রাল নিউজ এজেন্সি জানায়, মৌসুমি ফ্লুতে আক্রান্ত হয়ে অঞ্চলটিতে ১৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। তাদের মধ্যে ৮০ বছর বয়সী এক বৃদ্ধা ছিলেন। গত ডিসেম্বরের শেষে জ্বর আক্রান্ত হয়ে ওই বৃদ্ধা হাসপাতালে ভর্তি হন। পরে নিউমোনিয়ায় মারা যান তিনি।

সিডিসি চিকিৎসক লিন ইয়ুং-চিং জানান, ফ্লুতে আক্রান্ত হওয়ার আগেই প্রতিষেধক দিয়েছিলেন ওই বৃদ্ধা। তিনি আরও জানান, গত ১ অক্টোবর থেকে ৭৭১ জন গুরুতর ইনফ্লুয়েঞ্জা নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন। তাদের মধ্যে ৫৬ জনের মৃত্যু হয়েছে।

গুরুতর রোগীদের মধ্যে ৪১ শতাংশের বয়স ৬৫ বছরের বেশি। অন্য ৩২ শতাংশের বয়স ৫০ থেকে ৬৪ বছর। তাদের মধ্যে ৯৮ শতাংশই ফ্লু’র প্রতিষেধক দেননি। ফ্লু থেকে সুরক্ষার জন্য ভ্যাক্সিন বা প্রতিষেধক নেওয়ার আহ্বান জানান সিডিসির মুখপাত্র।

শুধু তাইওয়ান নয়, যুক্তরাষ্ট্রে এ মৌসুমে ফ্লু আক্রান্ত হয়ে অন্তত ১৩শ’ মানুষের মৃত্যু হয়েছে। মার্কিন রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্র এ তথ্য জানায়।

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here