ভারতের লোকসভার পর বুধবার রাজ্যসভায়ও পাস হয়েছে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল (সিএবি)। ভোটাভুটিতে ১২৫টি ভোট পড়েছে বিলের পক্ষে। বিপক্ষে পড়ে ১০৫ ভোট। এবার রাষ্ট্রপতি সই করলেই এই বিল আইনে পরিণত হবে।

কেউ দেশ ভক্তির সার্টিফিকেট দান করার স্কুলের হেডমাস্টার বললেন তো কেউ সংবিধানের দোহাই দিয়ে জনমতের সঙ্গে খেলা করা হচ্ছে বললেন।

কেউ আবার স্বর্গে গান্ধি, জিন্না এবং প্যাটেল, একসঙ্গে দেখা করছেন এই রকম পরিস্থিতিও কল্পনা করে ফেললেন।

অমিত শাহ বলেন, আপনারা কি চান পুরো বিশ্ব থেকে মুসলমানরা এখানে আসুক আর আমরা তাদের নাগরিক হিসেবে গ্রহণ করি? তাহলে দেশ চলবে কী করে?

শিবসেনা নেতা সঞ্জয় রাউত বললেন, যদি পাকিস্তানের ভাষা আমরা চাই না তাহলে পাকিস্তানকে শেষ করা হোক। আমাদের দেশে মজবুত সরকার রয়েছে। দেশভক্তির সার্টিফিকেট যারা দান করছেন আপনারা যে স্কুলের ছাত্র, আমরা সেই স্কুলের মাস্টারমশাই। আর আমাদের স্কুলের হেডমাস্টার বালাসাহেব ঠাকরে ছিলেন, অটল জি ছিলেন, শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জী ছিলেন, আমি তাদের সবাইকে সম্মান করি।

আনন্দ শর্মা বলেন, এখানে পুনর্জন্মে বিশ্বাস করা হয়। সর্দার প্যাটেলের সঙ্গে যদি মোদির দেখা হতো, তাহলে উনি খুবই রেগে যেতেন। গান্ধীজির চশমা শুধুমাত্র বিজ্ঞাপনে ব্যবহারের জন্যই নয়।

আরজেডির মনোজ ঝা বলেন, যদি স্বর্গ বলে কোথাও কিছু থাকে, তাহলে সেখানে সিএবি(CAB) এর পরে জিন্না এবং মহাত্মা গান্ধির যদি দেখা হয় তাহলে জিন্না গান্ধিজীকে বলবেন ,শুভেচ্ছা আপনাকে আপনাদের ওখানে ইজরাইল হয়েছে।

কংগ্রেসের পক্ষ থেকে কপিল সিব্বল বলেন, মুসলমানরা আপনাদের ভয় পায় না। জুরাসিক রিপাবলিক বানানো হচ্ছে দেশকে, শেষ পর্যন্ত দুজন ডাইনোসরই বাঁচবে।

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here