অধিবেশন চলাকালীন মার্কিন কংগ্রেস ভবনে ঢুকে ট্রাম্প সমর্থকদের সহিংসতার ঘটনায় এখন পর্যন্ত চারজন নিহত হয়েছেন। ওয়াশিংটন ডিসি’র পুলিশ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে পুলিশের গুলিতে এক নারী নিহত হন। এতে আহত হন আরও কয়েকজন। তবে আশঙ্কাজনকভাবে আহত আরও তিনজনের মৃত্যু হয়।

এখন পযন্ত ৫২ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। যাদের মধ্যে ৪৭ জন কারফিউ ভেঙেছিলেন।

নভেম্বরের নির্বাচনে জয় লাভ করা জো বাইডেনকে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রেসিডেন্ট হিসেবে অনুমোদনের জন্য বুধবার আইন-প্রণেতারা অধিবেশনে বসেন। সেসময় পরাজয় মেনে নিতে অনিচ্ছুক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নামে স্লোগান দিয়ে তার সমর্থকেরা কংগ্রেস ভবন ক্যাপিটলে ঢুকে পড়ে। কয়েক ঘণ্টা কংগ্রেস ভবন কার্যত দখল করে সেখানে ভাংচুর চালায় তারা। পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ ঘটে তাদের।

পরিস্থিতি মোকাবিলায় রাজধানী ওয়াশিংটনে স্থানীয় সময় সন্ধ্যা ৬টা থেকে ১২ ঘণ্টার কারফিউ ঘোষণা করা হয়েছে। কিন্তু সান্ধ্য আইন শুরু হবার পরও শত শত বিক্ষোভকারীকে রাস্তায় অবস্থান নিতে দেখা গেছে।

স্থানীয় সময় দুপুরের পরই ওয়াশিংটনে নাটকীয় দৃশ্যে দেখা যায়। হাজার হাজার ট্রাম্প সমর্থক ‘আমেরিকা বাঁচাও’ স্লোগান দিয়ে জমায়েত হতে থাকে। একপর্যায়ে  শত শত বিক্ষোভকারী ক্যাপিটলে ভবনে ঢুকে পড়তে থাকে। সেসময় কংগ্রেস সদস্যদের নিরাপদ জায়গায় সরিয়ে নিতে দেখা যায় পুলিশকে।

তবে পরিস্থিতি নিরাপদ হওয়ায় আবারও কংগ্রেস অধিবেশন শুরু হয়। সেখানে কংগ্রেস সদস্যদের মধ্যে নিন্দা ও ক্ষোভের বিস্ফোরণ ঘটে। তারা এ ঘটনাকে মার্কিন ইতিহাসের ‘নোংরা ও কালো দিন’ হিসেবে আখ্যা দেন।

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here