বার্মার মন্ত্রীর ‘মুসলিম বিদ্বেষী’ মন্তব্যের জন্য ঢাকায় দেশটির রাষ্ট্রদূতকে ডেকে নিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে ক্ষমা চাইতে বলেছে বাংলাদেশ।

ঢাকায় দেশটির রাষ্ট্রদূত লুইন উকে বুধবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে তলব করা হয়। তাকে বাংলাদেশের পক্ষে কড়া বার্তা জানিয়ে দেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব খুরশিদ আলম।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা বলেন, “মিয়ানমারের ধর্ম বিষয়কমন্ত্রীর বক্তব্য যে বাংলাদেশের মানুষের মনে আঘাত হেনেছে, তা কড়াভাবে জানিয়ে দেওয়া হয় রাষ্ট্রদূতকে। তাকে আনুষ্ঠানিকভাবে ক্ষমা চাইতেও বলা হয়েছে।”

গত ২৭ নভেম্বর মিয়ানমারের ধর্মমন্ত্রী থুরা উ অং কো এক অনুষ্ঠানে ইসলাম ধর্মের প্রতি ইঙ্গিত করে বলেন, উগ্রবাদী ধর্ম বৌদ্ধধর্মের জন্য হুমকি।

তিনি আরো বলেন, বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীরা এক বিয়েতে অভ্যস্ত এবং তাদের এক বা দুটি সন্তান রয়েছে। উগ্রপন্থী ধর্ম তিন কিংবা চার বিয়ে আর ১৫ থেকে ২০ টি সন্তান ধারণে উৎসাহ দেয়। তিন, চার, পাঁচ দশক পর বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের দেশে বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের লোকজন সংখ্যালঘু হয়ে পড়বে।

মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া মুসলিম রোহিঙ্গাদের মগজ ধোলাই করে তাদের মিয়ানমার অভিমুখে যাত্রা করতে প্ররোচিত করা হচ্ছে।

বৌদ্ধপ্রধান মিয়ানমারে নির্যাতনের মুখে বাস্তুচ্যুত ১০ লাখের বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়ে আছে।

তাদের ফেরত নিতে মিয়ানমার চুক্তি করলেও প্রত্যাবাসন এখনও শুরু করা যায়নি।

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here