অবশেষে কারাবন্দি তালেবান জঙ্গিদের মুক্তি দেওয়ার কথা ঘোষণা করল আফগানিস্তান সরকার। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে শান্তিচুক্তি সম্পন্ন হলেও, হামলা বন্ধে নারাজ ছিল তালেবানরা। তালেবান নেতারা স্পষ্ট জানিয়ে দেন, আফগানিস্তানের বিভিন্ন কারাগারে থাকা তালেবানরা মুক্তি না পাওয়া পর্যন্ত হামলা বন্ধের প্রশ্নই নেই। আফগান সরকারের বিরুদ্ধে হামলা জারি থাকবে। যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে তালেবানদের শান্তিচুক্তি হওয়ার পরও তাই বিক্ষিপ্ত ভাবে কিছু হামলার ঘটনা ঘটেছে। ক্রমাগত এই চাপের মুখে তালেবানদের প্রতি নরম মনোভাব দেখাতে বাধ্য হয় আফগান সরকার।

আফগানিস্তানের প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানি গত সোমবার বলেন, তালেবান বন্দিদের মুক্তি দেওয়ার একটি ব্যবস্থায় পৌঁছানো গেছে। মঙ্গলবার (১০ মার্চ) প্রেসিডেন্ট হিসাবে আরও পাঁচ বছরের জন্য শপথ নেওয়ার পর ঘানি এই সিদ্ধান্তের কথা জানান। একই সময়ে কয়েক মিটার দূরত্বে তার নির্বাচনী প্রতিদ্বন্দ্বী আবদুল্লাহ আবদুল্লাহও সমান্তরাল শপথ গ্রহণ করেন।

এদিন শপথ গ্রহণের পর ঘানি বলেন, সরকারে কেবল তার নিজের রাজনৈতিক শিবিরের সদস্য থাকবে না। আগের মন্ত্রিসভাকে আরও দু’সপ্তাহ চালিয়ে যাওয়ার কথাও বলেন ঘানি। তার কথায়, ‘পরে আমরা আলোচনা সাপেক্ষে একটি অন্তর্ভুক্তিমূলক সরকার গঠন করব।’

তালেবান বন্দিদের ছেড়ে দেওয়ার পক্ষপাতী ছিলেন না ঘানি। গত ২ মার্চ ঘানি প্রকাশ্যে বলেন, মার্কিন-তালেবান চুক্তিতে বন্দি বিনিময়ের যে ধারাটি রয়েছে, সে সম্পর্কে তিনি কোনও প্রতিশ্রুতি দেবেন না। একটা বড় সংখ্যক বন্দির মুক্তির জন্য তালেবানরা যে চাপ সৃষ্টি করছে, তা মানা সম্ভব নয় বলেই তিনি জানিয়ে দিয়েছিলেন। ফলে তালেবানরাও একরোখা মনোভাব ধারণ করে। তারা জানিয়ে দেয়, ৫ হাজার বন্দিকে মুক্তি না দেওয়া পর্যন্ত আমরা আফগান সরকারের সঙ্গে আলোচনায় যোগ দেব না।’

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here