সংকটাপন্ন দেশ

মুফতি সাখাওয়াত হোসাইন রাযি


প্রায় দুই মিলিয়ন রোহিঙ্গা আশ্রয় নিয়েছে বাংলাদেশে। মানবতার খাতিরে তাদেরকে আশ্রয় দিয়ে বাংলাদেশ প্রশংসাও কুড়িয়েছে বেশ। আলেম ওলামা ও বাংলাদেশের সাধারণ মানুষ যথাসাধ্য সহযোগিতা আজও অব্যাহত রেখেছে। কিন্তু তাদেরকে যে তাদের দেশে ফিরে যাওয়ার ব্যবস্থা করতে হবে, না হলে তাদের মানবেতর জীবনযাপন দীর্ঘায়িত হবে এবং তাতে রোহিঙ্গা আশ্রিত এলাকায় এক সময় সংকট দেখা দিতে পারে।

আসাম অঞ্চলে অবৈধ ঘোষণা করা হয়েছে প্রায় ৩০ লক্ষ বাঙালিকে। ভারত সরকার বলছে তাদেরকে বাংলাদেশে তাড়িয়ে দেয়া হবে।

ট্রানজিট সুবিধার পর মংলা বন্দর ও চিটাগাং বন্দর ব্যবহারের সুযোগ দেয়া হয়েছে ভারতকে অনেকটা একতরফাভাবে। দেশে রাজনৈতিক অস্থিরতার কারণেই এইভাবে চুক্তি সম্পন্ন হয়েছে বলে মনে করেন সচেতন মহল।

আজও জাতীয় দৈনিকগুলোতে দৃষ্টি দিলে দেখা যাবে ভারত সরকারের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিরা বলছেন, বাংলাদেশে তারা দিল্লীর শাসন চান।

সব মিলিয়ে বাংলাদেশ যে এক সংকটাপন্ন অবস্থায় আছে তা বুঝতে কারো অসুবিধা হবার কথা নয়। কিন্তু এই সংকট থেকে উত্তরণের পথ কি?

এই সংকট থেকে উত্তরণের পথ হচ্ছে জাতীয় ঐক্য তৈরি করা। যদি আমরা ঐক্যবদ্ধভাবে দেশের পক্ষে না দাঁড়াতে পারি তাহলে এ দেশের স্বাধীনতা টিকিয়ে রাখা যাবে না। সব দলগুলোকেই এ কথা বুঝতে হবে এবং তাদের মধ্যে পরস্পরকে ছাড় দেয়ার মানসিকতা তৈরি করতে হবে।

যদি কোন দল ক্ষমতার লোভে জাতীয় ঐক্য থেকে দূরে সরে গিয়ে দেশকে বিপন্ন করার কারণ হয়, তার বিরুদ্ধে অন্য সব দলকে ঐক্যবদ্ধ ভাবে সোচ্চার হতে হবে।

আমি মনে করি, এই বিষয়টি বর্তমানে সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। আলেম-ওলামাদেরও এ নিয়ে ভাবতে হবে। তুলনামূলক কম গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলোকে ছেড়ে দিয়ে এই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে পদক্ষেপ নিতে হবে।

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here