কোরবানি মহান আল্লাহর কাছে প্রিয় আমল। হজরত আদম আ. থেকে নিয়ে আজ অবধি চলে আসছে কোরবানির বিধান। কোরবানির পশু জবাইয়ের মাধ্যমে নিজের ভেতরের পশুত্বকে জবাই করতে হবে। এটাই কোরবানির প্রকৃত শিক্ষা। জাবির রা. বলেন, ‘আমরা আল্লাহর রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সঙ্গে হজ ও উমরার সফরে সঙ্গী ছিলাম। তখন আমরা একটি গরু ও উটে সাতজন করে শরীক হয়েছিলাম। সহিহ মুসলিম, হাদিস ১৩১৮

আব্দুল্লাহ ইবনু আব্বাস রা. বলেন, ‘আমরা রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সঙ্গে এক সফরে ছিলাম। এমতাবস্থায় কোরবানির ঈদ উপস্থিত হলো। সুনানে তিরমিজী, নাসাঈ, ইবনু মাজাহ, মিশকাত, হা/১৪৬৯

সহিহ বুখারি শরিফের বর্ণনায় আনাস রা. বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হজের সফরে মিনায় নিজ হাতে ৭টি উট (অন্য বর্ণনায় এরও অধিক) দাঁড়ানো অবস্থায় ‘নহর’ করেছেন এবং মদীনায় (মুক্বীম অবস্থায়) দু‘টি সুন্দর শিংওয়ালা খাসি কোরবানি করেছেন। আয়েশা রা. বলেন, বিদায় হজ্জের সময় রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তার সফরসঙ্গী স্ত্রী ও পরিবারের পক্ষ হতে একটি গরু কোরবানি করেন। সহিহ বুখারী, ১/২৩১; সহিহ আবু দাউদ, হা/১৫৩৯

উপর্যুক্ত হাদিসের ভিত্তিতে কোরবানির পশুতে সাতজন শরীক হতে পারবে, গরু, মুহষ, উটে। আর ছাগল, ভেড়ায় শুধু এক শরিক কোরবানি দিতে পারবে। নিচে কোরবানির পশুতে শরীকের সংখ্যা নিয়ে আলোচনা করা হলো।

একটি ছাগল, ভেড়া বা দুম্বা দ্বারা শুধু একজনই কোরবানি দিতে পারবে। ছাগল, ভেড়া, দুম্বায় কয়েকজন মিলে কোরবানি করলে কারো কোরবানিই সহিহ হবে না। আর উট, গরু, মহিষে সর্বোচ্চ সাত জন শরীক হতে পারবে। সাতের অধিক শরীক হলে কারো কোরবানি সহিহ হবে না। সহিহ মুসলিম ১৩১৮, মুয়াত্তা মালেক ১/৩১৯, কাজিখান ৩/৩৪৯, বাদায়েউস সানায়ে ৪/২০৭-২০৮

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here