শরণার্থী শিবির থেকে রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে স্থানান্তরের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। বৃহস্পতিবার (৩ ডিসেম্বর) সকাল থেকে শরণার্থী শিবির ছাড়তে শুরু করেন। এর আগে বুধবারও কিছু রোহিঙ্গা ভাসানচরের উদ্দেশ্যে ক্যাম্প ছাড়ে। এসব রোহিঙ্গাকে কুতুপালংয়ের ট্রানজিট ও কলেজ মাঠের পয়েন্টে রাখা হয়। সেখান থেকে রোহিঙ্গাদের আজ বাসে ভাসানচরের দিকে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।

নৌ বাহিনীর জাহাজ দিয়ে রোহিঙ্গাদের দুইমাস খাদ্য সামগ্রী সরবরাহ করা হবে। এরপর তারা নিজেরাই রান্না করে খেতে পারবেন। সুশৃঙ্খলভাবে রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে স্থানান্তরে কর্মরত রয়েছেন আইন-শৃঙ্খলা বাহিবীর সদস্যরা।

সরকার থেকে দাবি করা হয়েছে, কোনো বলপ্রয়োগ ছাড়াই রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে যাওয়ার ইতিবাচক মনোভাব দেখে তাদের সেখানে পাঠানোর বিষয়ে কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। রোহিঙ্গাদের প্রথম দলটিকে নিরাপদে ভাসানচরে পাঠাতে পারলে আরও অনেক পরিবার সেখানে যেতে আগ্রহী হবে বলে সরকার আশাবাদী।

কক্সবাজারের ৩৪টি ক্যাম্পে থাকা ১১ লাখ রোহিঙ্গার মধ্যে প্রায় এক লাখ রোহিঙ্গাকে বঙ্গোপসাগরের মোহনায় জেগে উঠা ভাসানচর দ্বীপে অস্থায়ীভাবে পাঠানোর উদ্যোগ নেয় সরকার। এ কারণে প্রায় তিন হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে আবাসন প্রকল্প নির্মাণও সম্পন্ন হয়েছে। জোয়ার ও জলোচ্ছ্বাস থেকে এলাকা রক্ষা করতে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ এবং এক লাখ রোহিঙ্গা বসবাসের উপযোগী ১২০টি গুচ্ছগ্রামের অবকাঠামো তৈরি করা হয়েছে। নির্মিত হয়েছে সাইক্লোন সেল্টার, শিক্ষা ও প্রয়োজনীয় চিকিৎসা অবকাঠামো।

তবে কক্সবাজার থেকে রোহিঙ্গা উদ্বাস্তুদের ভাসানচরে স্থানান্তরের প্রক্রিয়া শুরু হওয়ার দিনেই দুইটি আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা, হিউম্যান রাইটস ওয়াচ এবং অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল, এই স্থানান্তর প্রক্রিয়া বন্ধ করার আহ্বান জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছে।

হিউম্যান রাইটস ওয়াচ তাদের বিবৃতিতে বলেছে, বাংলাদেশের সরকারের উচিত একটি স্বচ্ছ স্থানান্তর প্রক্রিয়া অনুসরণ করে উদ্বাস্তুদের বুঝে-শুনে সিদ্ধান্তের ভিত্তিতে এবং দ্বীপটিতে যাওয়া-আসার অনুমতি সাপেক্ষে স্থানান্তর প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা। সেই সাথে জাতিসঙ্ঘের আহ্বান অনুযায়ী একটি স্বাধীন কারিগরি এবং সুরক্ষা বিষয়ক মূল্যায়ন পরিচালনা করা উচিত।

হিউম্যান রাইটস ওয়াচ দাবি করেছে যে, ভাসান চরে স্থানান্তর করা হবে এমন অন্তত ১২টি পরিবারের সদস্যদের সাথে কথা বলেছেন তারা। যাদের নাম তালিকায় রয়েছে। কিন্তু তারা স্বেচ্ছায় স্থানান্তর হতে চান না বলে মানবাধিকার সংস্থাটিকে জানিয়েছেন। এই তালিকায় থাকা কিছু উদ্বাস্তু জোর করে স্থানান্তরিত হওয়ার ভয়ে পালিয়েছেন বলেও দাবি করেছে সংস্থাটি।

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here