সিলেটে রায়হান হত্যার ঘটনায় মূলহোতা এসআই আকবরকে পালাতে সহায়তা করায় বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়ির এসআই হাসান উদ্দিনকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। এ নিয়ে এ ঘটনায় পাঁচ পুলিশ কর্মকর্তা ও সদস্য বরখাস্ত হলেন।

সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের মিডিয়া উইং থেকে পাঠানো এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানানো হয়। আজ বুধবার সন্ধ্যায় বিবৃতিটি গণমাধ্যম কর্মীদের হাতে আসে।

সিলেট নগরের বন্দর থানায় পুলিশি হেফাজতে ১১ অক্টোবর ভোরে রায়হান উদ্দিন (৩৩) নামে এক যুবক মারা যান। নিহত যুবকের পরিবারের অভিযোগ, পুলিশ তাকে মেরে ফেলেছে।

অপরদিকে সেসসময় পুলিশের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়, ছিনতাইয়ের দায়ে নগরের কাষ্টঘর এলাকায় গণপিটুনিতে নিহত হন রায়হান। যদিও ওই এলাকার সিসিটিভি ফুটেজে গণপিটুনির কোনও প্রমাণ পাওয়া যায়নি। এলাকাবাসীও বলেছিল, কাষ্টঘরে গণপিটুনির কোনও ঘটনা ঘটেনি।

রায়হানের মা-বাবা-বোনরা প্রথম থেকেই অভিযোগ করছেন, পুলিশের নির্যাতনে খুন হয়েছেন রায়হান। তাদের দাবি বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়ি থেকে রোববার ভোরে রায়হানের পরিবারের কাছে ফোন করে টাকা দাবি করা হয়েছে।

সিলেট নগরীর কাষ্টঘর এলাকা সিলেট সিটি করপোরেশনের ১৪ নং ওয়ার্ডের অন্তর্ভুক্ত। এই এলাকার পুরোটাই ক্লোজ সার্কিট (সিসিটিভি) ক্যামেরার আওতাভুক্ত। এসব ক্যামেরার মনিটরিংয়ের দায়িত্বে রয়েছেন ১৪ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর নজরুল ইসলাম মুনিম।

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here