ইমাম মাহদী দাবিকারী সৌদি প্রবাসী বাংলাদেশি নাগরিক মুস্তাক মুহাম্মদ আরমান খানের অন্যতম সহযোগী সিরাজুল ইসলামকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ইনভেস্টিগেশন বিভাগ।

ঢাকা মহানগর পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার মো. ওয়ালিদ হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, মঙ্গলবার রাজধানীর দক্ষিণ বাড্ডা এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ইনভেস্টিগেশন বিভাগের একটি টিম।

কাউন্টার টেরোরিজম ইনভেস্টিগেশন বিভাগ সূত্রে জানা যায়, গ্রেফতারকৃত সিরাজুল ইসলাম কথিত ইমাম মাহাদী দাবিকারী মুস্তাক মুহাম্মদ আরমান খানের অন্যতম সহযোগী হিসেবে ফেসবুকসহ বিভিন্ন অনলাইন মাধ্যমে প্রচার প্রচারণা চালিয়ে আসছিলেন।

মুস্তাক মুহাম্মদ আরমান খান দীর্ঘদিন যাবত ইসলাম ধর্ম নিয়ে অপব্যাখ্যামূলক, মনগড়া ও ভিত্তিহীন বক্তব্য অডিও, ভিডিও আকারে ইউটিউব চ্যানেল ‘তাকওয়া অনলাইন টিভি’, অন্যান্য ইউটিউব চ্যানেল ও তার নিজ নামীয় ফেসবুক আইডি হতে প্রচার করে আসছিলেন।

কাউন্টার টেরোরিজম সূত্রে আরও জানা যায়, গ্রেফতারকৃত সিরাজুল ইসলাম মুস্তাক মুহাম্মদ আরমান খানের অনুসারী হিসেবে কথিত বায়াত গ্রহণ করেন। তিনি এ সকল অডিও, ভিডিও ফেসবুকসহ বিভিন্ন অনলাইন মাধ্যমে প্রচার করে আসছিলেন। তিনি মুস্তাক মুহাম্মদ আরমান খানের অনুসারী সংগ্রহের জন্য অনলাইন ও অফলাইনের মাধ্যমে তৎপরতা চালাচ্ছিলেন।

জানা যায়, সাম্প্রতিককালে ইমাম মাহদী দাবিকারী মুস্তাকের এমন বক্তব্যে বিভ্রান্ত হয়ে বাংলাদেশ থেকে বায়াত গ্রহণ করার উদ্দেশ্যে সৌদি আরব গমনের সময় ১৯ জন পুলিশের হাতে গ্রেফতার  হন।

এছাড়াও, ইতোপূর্বে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, ময়মনসিংহের পাঁচজন ছাত্র ওমরাহ পালনের জন্য সৌদি আরব গমন করে তার অনুসারি হিসেবে যোগদান করেন। গ্রেপ্তারকৃত সিরাজুল ইসলামও সৌদি আরব গমন করে মুস্তাক মুহাম্মদ আরমান খানের অনুসারি হিসেবে যোগদান করার পরিকল্পনা করছিল।

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here