আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরী

সিরাজগঞ্জের নলকায় তেজগাঁও বেগুনবাড়ী জামিয়া ইসলামিয়া মাদরাসার একটি বাস ভয়াবহ সড়ক দুর্ঘটনার শিকার হয়ে ৪ জন নিহত এবং অর্ধশতাধিক মাদরাসাছাত্র হতাহতের ঘটনায় গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের মহাসচিব ও হাটহাজারী মাদরাসার সহযোগী পরিচালক আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী।

গত রোববার সংবাদ মাধ্যমে প্রেরিত এক শোক বার্তায় আল্লামা বাবুনগরী বলেন, তেজগাঁও বেগুনবাড়ী জামিয়া ইসলামিয়া মাদরাসার ছাত্রদের সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ও হতাহতের ঘটনায় আমি গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করছি। এ মর্মান্তিক দুর্ঘটনায় নিহতদের মাগফিরাত কামনা করছি এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানাচ্ছি। সেই সঙ্গে আহতদের দ্রুত সুস্থতা কামনা করছি।

গত ক’দিন সেবামূলক কাজে বের হয়ে সড়ক দুর্ঘটনায় হাফেজ্জী হুজুর রহ.সেবা সংস্থার সদস্য ও যাত্রাবাড়ী মাদরাসার ছাত্র মুহাম্মদ আশিকুর রহমান নিহত ও অন্যান্য সদস্য হতাহতের ঘটনায় গভীর শোক ও সমবেদনা প্রকাশ করেন আল্লামা বাবুনগরী।

যাত্রাপথে জনগণের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা সরকারের দায়িত্ব ও কর্তব্য উল্লেখ করে আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী আরো বলেন, চালকদের অসাবধানতা, অদক্ষতা ও লাইসেন্সবিহীন অদক্ষ চালকদের কারণে প্রতিনিয়ত সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণহানির ঘটনা ঘটছে। এ ছাড়াও রাস্তায় পুরনো ও ত্রুটিপূর্ণ যানবাহনের চলাচল, প্রতিযোগিতামূলক গাড়ি চালানো এবং ওভারটেকিং সড়ক দুর্ঘটনার জন্য অনেক বেশি দায়ী।

সড়ক নিরাপত্তা বিষয়ক সচেতনতার অভাব, সড়ক বিষয়ক আইন প্রয়োগ এবং বাস্তবায়ন যথাযথ না থাকা, প্রয়োজনীয় সংখ্যক ট্রাফিক পুলিশের অভাব ও ট্রাফিক নিয়ম ভঙ্গ করা সহ বিকল্প যানবাহনের সুবিধা পর্যাপ্ত না থাকা,ওভারব্রিজের স্বল্পতা, সড়কের এবং ফুটপাতের ওপর অবৈধ হাটবাজার ও স্থাপনার কারণে সড়ক দুর্ঘটনা আমাদের জীবনযাপনের ক্ষেত্রে একটি জাতীয় সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে।

আল্লামা বাবুনগরী বলেন, দৈনিক খবরের পাতা উল্টালেই সড়ক দুর্ঘটনায় হতাহতের মর্মান্তিক চিত্র চোখে পড়ে। নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা) এবং যাত্রীকল্যাণ সমিতির এক প্রতিবেদন অনুযায়ী, সড়কে মৃত্যু বেড়েছে। সমিতির হিসাবে ২০১৯ সালে পাঁচ হাজার ৫১৬ সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন সাত হাজার ৮৫৫ জন। আহত হয়েছেন ১৩ হাজার ৩৩০। ২০১৮ সালের তুলনায় গত বছর সড়কে প্রাণহানি বেড়েছে ৮ দশমিক শূন্য সাত শতাংশ। তাই সড়ক দুর্ঘটনা রোধে সরকার,সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর সহ সংশ্লিষ্ট সকলকে কার্যকরী পদক্ষেপ প্রহণ করতে হবে।

আল্লামা বাবুনগরী আরও বলেন, ইসলামী শরিয়ত মতে, সফরের যেসব ‘আদব’ বা করণীয় শিষ্টাচার রয়েছে, সেসব মতে চলাফেরা করলে দুর্ঘটনা থেকে অনেকাংশে নিরাপদ থাকা যায়। হাদিস শরিফে এসেছে, যখন তুমি ঘর থেকে বের হবে, তখন দুই রাকাত নামাজ পড়বে। সেই নামাজ তোমাকে ঘরের বাইরের বিপদ-আপদ থেকে হেফাজত করবে। তাই যাত্রাপথে আল্লাহকে বেশি বেশি স্মরণ করুন। সফরে দোয়া দরূদ পড়তে থাকুন। গান-বাজনা, বেপর্দা ইত্যাদি গুনাহ থেকে বেঁচে থাকুন। গুনাহের কারণে অনেকটা আযাব আসে।

এ ঘটনায় আহতদের সুচিকিৎসা নিশ্চিত করণ সহ স্থানীয় জেলা প্রশাসন,ওলামায়ে কেরাম ও জনপ্রতিনিধিদের দুর্ঘটনার শিকার ব্যক্তিদের সহায়তায় এগিয়ে আসার এবং সামর্থ অনুযায়ী সহযোগিতা নিয়ে নিহতদের পরিবারের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান জানান হেফাজত মহাসচিব আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী। সূত্র : আওয়ার ইসলাম

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here