ঢাকা দুই সিটি করপোরেশনে ভোটযুদ্ধে লড়তে বিএনপি মেয়র প্রার্র্থী ঘোষণা করলেও ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ নৌকার দুই মাঝির নাম প্রকাশ করবে আজ (রবিবার)। গতকাল সন্ধ্যায় গণভবনে আওয়ামী লীগের স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের সভায় ঢাকা উত্তর সিটির মেয়র পদে মো. আতিকুল ইসলামের নাম আলোচনা হলেও চূড়ান্ত হয়নি। দক্ষিণ সিটিতে মেয়র পদে মনোনয়ন বোর্ডের অধিকাংশ সদস্যই ঢাকা-১০ আসনের এমপি ব্যারিস্টার ফজলে নূর তাপসকে সমর্থন দেন। তবে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বক্তব্য ও অবস্থান কিছুটা ছিল বর্তমান মেয়র সাঈদ খোকনের পক্ষে। তবে এ সিটির মেয়র পদও চূড়ান্ত করতে পারেনি বোর্ড। আজ বেলা ১১টায় ধানমন্ডির দলীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করবে আওয়ামী লীগ। গতকাল গণভবনে অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের সভা শেষে দলের সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এ তথ্য জানান।

এদিকে উত্তর সিটিতে বিএনপি পুরনো মেয়র প্রার্থী তাবিথ আউয়ালে ভরসা রাখলেও দক্ষিণে নতুন মুখ প্রকৌশলী ইশরাক হোসেন। এর আগে দক্ষিণে লড়েছিলেন বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস। এবার অবিভক্ত ঢাকা সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র বিএনপির সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান প্রয়াত সাদেক হোসেন খোকার ছেলে ইশরাকের হাতেই ধানের শীষ তুলে দেওয়া হলো।

প্রার্থীদের নাম ঘোষণার বিষয়ে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমরা বিচার-বিশ্লেষণ ও পর্যালোচনা করছি। প্রধানমন্ত্রী নিজে থেকেও খোঁজ নিচ্ছেন। গোয়েন্দা সংস্থার রিপোর্ট নেওয়া হয়েছে। সবকিছু বিচার-বিশ্লেষণ করতে আমাদের একটু সময় লাগছে। আজ বেলা ১১টায় ধানমন্ডিতে সভাপতির কার্যালয়ে উভয় সিটির মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করা হবে।’

ঢাকায় বিএনপির মেয়র প্রার্থী ইশরাক ও তাবিথ : ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনে মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতার জন্য ইশরাক হোসেন ও তাবিথ আউয়ালকে মনোনয়ন দিল বিএনপি। গতকাল বিকালে গুলশানে বিএনপির পার্লামেন্টারি বোর্ডের বৈঠকের পর এ ঘোষণা দেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। স্থায়ী কমিটির সবাই পার্লামেন্টারি বোর্ডের সদস্য।

ঢাকা উত্তরে তাবিথের পাশাপাশি দলের বিশেষ সম্পাদক ড. আসাদুজ্জামান রিপনও মেয়র পদে মনোনয়নপ্রত্যাশী ছিলেন। তাঁরা তিনজন গতকাল বিকাল ৪টায় বিএনপির গুলশান কার্যালয়ে দলের মনোনয়ন বোর্ডের সামনে উপস্থিত হন। লন্ডন থেকে স্কাইপে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সভাপতিত্বে মনোনয়ন বোর্ডের বৈঠকে মহাসচিবসহ স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ড. আবদুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী ও ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু অংশ নেন। পরে সাংবাদিকদের মির্জা ফখরুল বলেন, বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সভাপতিত্বে পার্লামেন্টারি বোর্ড আসন্ন সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে সবকিছু বিবেচনা করে উত্তরে তাবিথ আউয়াল ও দক্ষিণে ইশরাক হোসেনকে মনোনয়ন দিয়েছেন।

‘আন্দোলনের অংশ হিসেবে’ বিএনপি এ নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে জানিয়ে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘আমরা একটি গণতান্ত্রিক দল, আমাদের পক্ষে নির্বাচনে থাকাটাই উপযোগী কাজ। তার মধ্য দিয়েই আমরা আমাদের আন্দোলনটা আরও বেগবান করতে সক্ষম হব, জনগণের কাছে যেতে সুযোগ সৃষ্টি হবে। গত নির্বাচনে সরকার ও নির্বাচন কমিশন সেই সুযোগ আমাদের দেয়নি। এ নির্বাচন সুষ্ঠু হবে, তা আমরা মনে করি না। তার পরও আমরা এ নির্বাচনে যাচ্ছি আন্দোলনের অংশ হিসেবে।’

বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য তাবিথ আউয়াল ব্যবসায়ী আবদুল আউয়াল মিন্টুর ছোট ছেলে। ২০১৫ সালে ভোট শুরুর কয়েক ঘণ্টার মধ্যে অনিয়মের অভিযোগ তুলে বর্জনের ঘোষণা দিয়েছিলেন তিনি। ওই নির্বাচনে মেয়র নির্বাচিত হয়েছিলেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী আরেক ব্যবসায়ী প্রয়াত আনিসুল হক। তাঁর মৃত্যুর পর ঢাকা উত্তরে উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে জয়ী হয়ে মেয়র পদে রয়েছেন আরেক ব্যবসায়ী আতিকুল ইসলাম। এবারও তিনি আওয়ামী লীগের প্রার্থী হতে পারেন। অন্যদিকে ২০১৫ সালে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে মেয়র পদে বিএনপির প্রার্থী ছিলেন স্থায়ী কমিটির সদস্য সাবেক মেয়র মির্জা আব্বাস। এবার সেখানে এলেন খোকাপুত্র ইশরাক। এ সিটিতে মেয়র পদে বিএনপির মনোনয়নপ্রত্যাশী তিনি একাই ছিলেন।

নির্বাচিত হলে ‘বাসযোগ্য আধুনিক ঢাকা’ গড়ার অঙ্গীকার তাবিথ আউয়ালের, ‘নগর সরকার’ আদলে ঢাকাকে সাজানোর অঙ্গীকার ইশরাক হোসেনের। মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর তাঁদের দলীয় মনোনয়ন দেওয়ার ঘোষণার পর সাংবাদিকদের কাছে প্রতিক্রিয়ায় এ প্রতিশ্রুতির কথা জানালেন তাঁরা। তাবিথ আউয়াল ও ইশরাক হোসেন উভয়ে তাঁদেরকে মনোনয়ন দেওয়ার জন্য বিএনপি, বেগম খালেদা জিয়া ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও নেতা-কর্মী-সমর্থকদের ধন্যবাদ জানান। তাঁরা মনে করেন, এটা প্রাথমিক বিজয় শুধু তাঁদের নয়, বাংলাদেশের গণতন্ত্রকামী সব কর্মীর। নগর ও দেশবাসীর কাছে দোয়াও চান তাঁরা।

বিজয়ী হলে কী করবেন- এমন প্রশ্নের জবাবে তাবিথ আউয়াল বলেন, ‘ঢাকা শহরের প্রতিটি সেক্টর নিম্নস্থানে আছে। গণতন্ত্র রক্ষা করতে হবে, মানুষের যে ন্যূনতম অধিকারগুলো আছে সেগুলো রক্ষা করতে হবে। তার পাশাপাশি ঢাকাকে উন্নয়ন করতে হবে। জনকল্যাণে জনগণের জন্য আমরা প্রস্তুত হচ্ছি।’

ইশরাক হোসেন বলেন, ‘ক্ষমতার ভারসাম্যের অনুপস্থিতির কারণেই কিন্তু আমাদের ঢাকা আজকে বিশ্বের সবচেয়ে অবসবাসযোগ্য নগরীর মধ্যে অন্যতম। কারণ এখন যাঁরা ক্ষমতায় আছেন তাঁদের মধ্যে জনগণের প্রতি বিন্দুমাত্র দায়বদ্ধতা নেই। তাঁরা ভোটের মাধ্যমে ক্ষমতায় আসেননি। যে পরিমাণ অর্থ পাচার হয়ে গেছে ১২ বছরে, এটা দিয়ে ঢাকা কেন বাকি ১২টি সিটি করপোরেশন উন্নত করা সম্ভব ছিল।’ তিনি বলেন, ‘ঢাকা সিটি করপোরেশনের যে অথরিটি দেওয়া আছে তা দিয়ে ঢাকার সমস্যার সমাধান ও উন্নত নগরী করা সম্ভব নয়। ঢাকাকে অবশ্যই একটি মেট্রোপলিটন গভর্নমেন্ট অথবা নগর সরকারের আদলে সাজাতে হবে।’

বিএনপির কাউন্সিলর প্রার্থী চূড়ান্ত আজ : ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে কাউন্সিলর পদে দলীয় মনোনয়নপ্রত্যাশীদের থেকে যাচাই-বাছাই করে প্রার্থী চূড়ান্ত করতে কমিটি করেছে বিএনপি। উত্তরে দলের ভাইস চেয়ারম্যান মো. শাহজাহানের নেতৃত্বে বাছাই কমিটিতে রয়েছেন আবদুল আউয়াল মিন্টু, সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, এম এ কাইয়ুম, বজলুল বাসিত আনজু, আহসান উল্লাহ হাসান ও সুলতানা আহমেদ। দক্ষিণে দলের চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুস সালামের নেতৃত্বে বাছাই কমিটিতে রয়েছেন মো. শাহজাহান, আবদুল আউয়াল মিন্টু, হাবিব-উন-নবী খান সোহেল, আফরোজা আব্বাস, কাজী আবুল বাশার ও নবীউল্লাহ নবী।

অন্যদিকে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য সেলিমা রহমানের নেতৃত্বে সংরক্ষিত (মহিলা) কাউন্সিলর বাছাই কমিটিতে রয়েছেন আফরোজা আব্বাস, সুলতানা আহমেদ, জেবা খান, নিপুণ রায়চৌধুরী এবং মহিলা দলের উত্তর ও দক্ষিণের সভাপতি। এ দুই কমিটি আজ সকাল ৯টায় গুলশানের কার্যালয় এবং নয়াপল্টনে মহানগরী কার্যালয়ে মনোনয়নপ্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার নিয়ে প্রার্থী চূড়ান্ত করবে বলে বিএনপি নেতারা জানিয়েছেন।

দুই সিটিতে মোট প্রার্থী ২১১০ জন : নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে, দুই সিটিতে মেয়র পদে নির্বাচনে অংশ নিতে নির্বাচন কমিশনের মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন ১১ জন। কাউন্সিলর পদে সব মিলিয়ে ২ হাজার ১১০ প্রার্থী দুই রিটার্নিং অফিস থেকে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। আগামী মঙ্গলবার (৩১ ডিসেম্বর) মনোনয়নপত্র সংগ্রহ ও জমার সময় শেষ হচ্ছে। সে হিসেবে প্রার্থীরা আর মাত্র দুই দিন সময় পাচ্ছেন মনোনয়নপত্র সংগ্রহ ও জমা দেওয়ার।

ইসি কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, গতকাল পর্যন্ত ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে মেয়র পদে সাত, সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৭৫৬ ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ১৬৮ জন মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। এর মধ্যে গতকাল মেয়র পদে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের শেখ ফজলে বারী মাসুদ ও পিডিপির শাহীন খান। এদিকে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে গতকাল পর্যন্ত মেয়র পদে চার, সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৯৯৫ ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ১৮০ জন মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। সংরক্ষিত কাউন্সিলর প্রার্থী একজন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। এর মধ্যে গতকাল মেয়র পদে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মো. আবদুর রহমান। সূত্র : বাংলাদেশ প্রতিদিন

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here