দেশে প্রথমবারের মতো যাত্রা শুরু করেছে ‘হিউম্যান মিল্ক ব্যাংক’। মায়ের বুকের দুধ সংরক্ষণের এ ব্যাংকটি ১ ডিসেম্বর চালু হলেও আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের অপেক্ষায় আছে। ‘হিউম্যান মিল্ক ব্যাংক’ ঢাকা জেলার মাতুয়াইলের শিশু-মাতৃস্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের (আইসিএমএইচ) নবজাতক পরিচর্যা কেন্দ্র (স্ক্যানো) এবং নবজাতক আইসিইউয়ের (এনআইসিইউ) নিজস্ব উদ্যোগ। বেসরকারি আর্থিক সহায়তায় ব্যাংকটি স্থাপন করা হয়েছে।

জানা গেছে, যে মায়েদের সন্তান জন্মের পর মারা গেছে বা নিজের সন্তানকে খাওয়ানোর পরও মায়ের বুকে অতিরিক্ত দুধ আছে, সেই মায়েরা হিউম্যান মিল্ক ব্যাংকে দুধ সংরক্ষণ করে রাখতে পারবেন। যে নবজাতকের জন্মের পরই মা মারা গেছেন বা যাদের মা অসুস্থতার জন্য দুধ খাওয়াতে পারছেন না, সেই নবজাতকেরা এই দুধ খেতে পারবে।

এ বিষয়ে ড. আ ফ ম খালিদ হোসেন বলেন, আমরা শরিয়তের মাসয়ালা বাদ দিতে পারি না। মিল্ক ব্যাংক থেকে যদি কোনো শিশু দুধ খেয়ে বড় হয় তাহলে দুধ ভাই বোনের বিয়ে হবে। যা সম্পূর্ণ হারাম। এ মিল্ক ব্যাংকের মাধ্যমে দেশের পারিবারিক প্রথা ভেঙে যাবে।

কেননা আল্লাহ তায়ালা পবিত্র কোরআনে স্পষ্ট ঘোষণা করেছেন- ‘তোমাদের জন্য হারাম করা হয়েছে তোমাদের মাতা, তোমাদের কন্যা, তোমাদের বোন, …… এবং যারা তোমাদেরকে স্তন্যপান করিয়েছে এবং তোমাদের দুধ-বোন……।

হাদীস শরীফে এসেছে ‘রক্তের সম্পর্কের ভিত্তিতে যেসব স্বজনেরা (বিয়ের জন্য) হারাম, দুধপানের সম্পর্কের ভিত্তিতেও তারা হারাম।’ (বুখারী, মুসলিম)

এবং এর উপর উম্মতের ঐক্যমত প্রতিষ্ঠিত। সেজন্যে কোন মুসলিম দেশেই এই ধরনের উদ্যোগ নেই। বৈবাহিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে অমুসলিমরা যেহেতু কোন ধরনের বিধি নিষেধ মানে না, তাদের দেশের কথা ভিন্ন।

তবে যদি কেউ করতে চায় তবে আলেমদের সাথে বসতে হবে।

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here