স্বেচ্ছাশ্রমে বিশ্ব ইজতেমার ময়দান তৈরির কাজ পুরোদমে এগিয়ে চলছে। গাজীপুর, ঢাকা ও আশপাশের এলাকা থেকে তাবলিগ জামাতের সাধারণ সাথী ও মাদরাসার ছাত্র-শিক্ষকরা এসব কাজে অংশ নিয়েছেন।

সোমবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) টঙ্গীর ইজতেমা ময়দানে গিয়ে দেখা যায়, কেউ মাটি কাটছেন, কেউ সেই মাটি বস্তায় ভরছেন, কেউ আবার সারি বেঁধে হাতে হাতে মাটি নিয়ে উঁচুনিচু মাঠ ভরাট করছেন। আবার কেউ তাঁবু টানাচ্ছেন, শৌচাগার পরিচ্ছন্ন করছেন, মাঠ পরিষ্কারের কাজ করছেন।

এদের সবাই স্বেচ্ছাশ্রমে আল্লাহর সন্তুষ্টির নিয়তেই এসব কাজ করছেন বলে জানান বিভিন্ন স্থান থেকে আসা মুসল্লিরা। সাধারণ মানুষের সঙ্গে প্রস্তুতির কাজে এবার ওলামায়ে কেরাম ও মাদরাসার ছাত্র-শিক্ষকদের অংশগ্রহণ দেখা গেছে বেশি। মাদরাসার কচি কচি শিক্ষার্থীরাও এসেছে এ কাজে।

কথা হয় ছোট এক মাদরাসা শিক্ষার্থীর সঙ্গে।  পুরোদমে কাজ করছে সে। দৌঁড়ে দৌঁড়ে কাজ করছে। জিজ্ঞেস করলাম তুমি কেন কাজ করছো? সে বলে আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য করছি। তার উত্তরে আমার ভেতরটা আনন্দে ভরে যায়।

বাটা গেট দিয়ে ময়দানে ঢুকে রোডের মাথায় বাঁ পাশে গিয়ে দেখা যায়, দীর্ঘ সারির মাধ্যমে মাটি বহন করে মাঠের উঁচুনিচু জায়গা সমান করছেন বিভিন্ন মাদরাসার শিক্ষার্থীরা। সেখানে কথা হয় টঙ্গী দারুল উলুমের ছাত্র মো. আবদুল করিমের সঙ্গে। তিনি জানান, তার মাদরাসার প্রিন্সিপাল প্রসিদ্ধ আলেমে দ্বীন মুফতি মাসউদুল কারিম ‘তাবলিগ ইস্যু’তে সমাধানের লক্ষ্যে বেশ সচেষ্ট ছিলেন। তিনি ছাত্রদের মাঠে কাজ করার প্রতি গুরুত্ব আরোপ করেছেন। তাছাড়া তার মাদরাসার অন্যান্য শিক্ষকরাও তাবলিগের কাজের প্রতি বেশ আন্তরিক।

রহমাতুল্লাহ নামের আরেকজন জানান, বিশ্বের বিভিন্ন স্থান থেকে ইজতেমায় আসা মুসল্লিদের যাতে কষ্ট না হয়, সে জন্য ঢাকার উত্তরা থেকে স্বেচ্ছায় কাজ করতে এসেছেন তিনি।

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here