গোপনে ফেসবুক ব্যবহার করেন স্ত্রী। এতে তীব্র আপত্তি ছিল স্বামীর। কিন্তু তারপরও রাতের পর রাত ফেসবুকেই সময় কাটাতেন গৃহবধূ। এতে পরিবারে দেখা দেয় চরম অশান্তি।

আর এর জের ধরে আত্মহত্যা করেছেন স্ত্রী। গলায় দড়ি দিয়ে আত্মঘাতী হয়েছেন ওই নারী। শুক্রবার ভোরে ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের কোলাঘাটের বাড়বড়িশায়।

এ ঘটনায় স্ত্রীকে আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেওয়ার অভিযোগে স্বামীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

পুলিশ জানিয়েছে, নিহতের নাম চৈতালি দাস (২৫)। স্বামী শুকদেব দাস পেশায় ওয়েল্ডার কর্মী। আট বছর আগে তাদের বিয়ে হয়। বর্তমানে তাদের একটি পুত্রসন্তানও রয়েছে। এমন অবস্থায় স্ত্রীর অতিরিক্ত মোবাইলে আসক্তি নিয়ে তীব্র বিরোধ বাঁধে।

অভিযোগ, স্বামীর আপত্তি সত্ত্বেও গোপনে ফেসবুক নিয়ে রাতের পর রাত সময় কাটাতেন ওই গহবধূ। বিষয়টি নজরে আসায় স্ত্রীকে সন্দেহ করতে শুরু করেন স্বামী। এরপর শুক্রবার রাতে সকলেই খাওয়া দাওয়া করে ঘুমিয়ে পড়লে ফের মোবাইলে ফেসবুক সার্চ করছিলেন ওই বধূ।

এদিকে, শীতের রাতে সকলে ঘুমিয়ে পড়লেও কেন গভীর রাত পর্যন্ত জেগে ফেসবুক দেখছিলেন তা নিয়ে শুরু হয় তীব্র অশান্তি। অশান্তি চরম আকার ধারণ করলে ভোরেই অভিমানে গলায় দড়ির ফাঁস লাগিয়ে আত্মঘাতী হন ওই গৃহবধূ।

ওই নারীর বাপের বাড়ির অভিযোগ, স্বামীর প্ররোচনায় আত্মহত্যা করেছে তাদের মেয়ে। এই অভিযোগের পরই স্বামীকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

এদিকে, স্থানীয় কোলাঘাট থানার ওসি কাশীনাথ চৌধুরি বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সূত্র: সংবাদ প্রতিদিন

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here