বকেয়া বেতনের দাবিতে দিনাজপুরের বিরলে রূপালী বাংলা জুট মিলের আন্দোলনকারী শ্রমিকদের ওপর পুলিশের গুলিতে এক পান দোকানদার নিহত হয়েছেন।

এ ঘটনায় তিন শ্রমিক গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। পুলিশের লাঠিচার্জে কমপক্ষে আরও ১৫ শ্রমিক আহত হয়েছেন।

বুধবার (২৫ মার্চ) রাত সাড়ে ৯টায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত সুরত আলী (৪০) বিরল উপজেলার হুসনা গ্রামের মোহাম্মদ আলীর ছেলে এবং জুট মিলের পাশের একটি পান দোকানদার।

গুলিবিদ্ধ দু’জনকে বিরল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এবং একজনকে দিনাজপুরের এম. আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

জানা যায়, মিলের মালিক বিরল উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি আব্দুল লতিফ। করোনার কারণে মিল বন্ধ হয়ে যাবে এমন খবরে বিকেল থেকে শ্রমিকরা আন্দোলন শুরু করেন। এ সময় মিল কর্তৃপক্ষ পুরো বকেয়া বেতন দিতে গড়িমশি শুরু করে। শ্রমিকদের কারও চার সপ্তাহের কারও তিন সপ্তাহের বেতন বকেয়া রয়েছে।

মিল কর্তৃপক্ষ ৫ দিনের বেতন দিতে চায়, আর শ্রমিকরা মিল বন্ধের আগে পুরো বকেয়া বেতন চান। এ নিয়ে শ্রমিকদের মাঝে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। এক পর্যায়ে মালিকপক্ষ কোনো বেতন দেবে না বলে জানালে শ্রমিকরা রাত ৮টার দিকে ভাঙচুর শুরু করে। মালিকপক্ষ পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ এসে পরিস্থিতি শান্ত করার চেষ্টা করে। এ সময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেলে পুলিশ গুলি চালায়। এতে ঘটনাস্থলেই গুলিবিদ্ধ হয়ে সুরত আলী মারা যান।

এবিষয়ে বিরল থানার ওসি শেখ নাসিম হাবিব জানান, বিক্ষোভকারীরা পুলিশের ওপর আক্রমণ করায় বাধ্য হয়ে প্রথমে লাঠিচার্জ, পরে তিন রাউন্ড টিয়ারশেল ও ১২ রাউন্ড রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে।

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here