বর্তমানে বিশ্বে ভারত ধর্ষণের রাজধানী হিসেবে পরিচিত বলে মন্তব্য করেছেন দেশটির বিরোধী দল কংগ্রেসের সাবেক সভাপতি রাহুল গান্ধী। 

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, গত শনিবার কেরালার ওয়ানখেড়ে এক সভায় রাহুল গান্ধী এ মন্তব্য করেন।

রাহুল গান্ধী আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি দেশজুড়ে হিংসা ও ঘৃণার পরিবেশ তৈরি করছেন। এখনও পর্যন্ত ধর্ষণের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী এখনও একটা শব্দও উচ্চারণ করলেন না। আসলে আমরা এমন একজন প্রধানমন্ত্রী পেয়েছিল, যিনি নিজেই ঘৃণা ও হিংসার আদর্শে বিশ্বাসী। এছাড়া মোদি’র শাসনামলে দেশে ধর্ষণের ঘটনা প্রচণ্ড বেড়ে গেছে বলেও তিনি অভিযোগ করেন।

সম্প্রতি ভারতের জিডিপি’র হার ক্রমাগত নিম্নমুখী। এই প্রসঙ্গে রাহুল গান্ধী বলেন, ‘তিনি অর্থনীতি সম্পর্কেও কিছু বোঝেন না। ফলে আমাদের দেশের মানুষ আতঙ্ক ও অস্বস্তির মধ্যে জীবন কাটাচ্ছেন। তবে আমি বলব আপনারা নিজেদের শক্তিকে ছোট করে না দেখে দেশের গতিমুখ বদলের চেষ্টা করুন।’

সম্প্রতি দেশটির তেলেঙ্গানা রাজ্যে ২৬ বছরের এক চিকিৎসক তরুণীকে ধর্ষণের পরে আগুন লাগিয়ে হত্যা করা হয়। এই ঘটনায় দেশজুড়ে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। জনগণ ধর্ষকদের বিচারের দাবিতে আন্দোলন করছে। পরে কথিত এক বন্দুকযুদ্ধে অভিযুক্ত চারজন নিহত হয়। বিরোধী দলগুলো কথিত বন্দুকযুদ্ধের সুষ্ঠু তদন্ত দাবি করছে।

এছাড়া গত শুক্রবার উন্নাওয়ে ধর্ষণের শিকার এক তরুণীকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যার চেষ্টা করা হয়। আদালতে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে শুনানির উদ্দেশ্যে যাওয়ার সময় তার শরীরে আগুন দেয়া হয়। আগুনের কারণে তার শরীরের ৯০ ভাগ পুড়ে যায়। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে দিল্লির সফদরজং হাসপাতালে ভর্তি করা হলেও তাকে বাঁচানো সম্ভব হয়নি।

ইতিমধ্যে এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত পাঁচ যুবককে আটক করেছে পুলিশ। তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে ক্ষোভে উত্তাল পুরো দেশ।

ইতিমধ্যে নিহত ওই তরুণীর বাড়িতে গিয়েছেন কংগ্রেসের নেত্রী প্রিয়াংকা গান্ধী। সেখানে তিনি পরিবারের সদস্যদেরকে সান্ত্বনা প্রদান করেন। পাশাপাশি দ্রুত অভিযুক্তদের বিচারের দাবিতে তিনি সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here